শব্দের কোথাও জ্ঞ/ক্ষ/য-ফলা/ঋ-কার থাকলে

শব্দের মধ্যে বা শেষে জ্ঞ/ক্ষ/য-ফলা/ঋ-কার থাকলে তার আগের বর্ণের অ-কারটি ও-কাররূপে উচ্চারিত হবে।
যেমন: লক্ষ। এখানে ‘ক্ষ’-এর আগের বর্ণ ‘ল’-এর সাথে একটি ‘অ’ (ল = ল্ + অ) রয়েছে। ‘ক্ষ’-এর কারণে উক্ত ‘অ’-টি ও-কাররূপে উচ্চারিত হবে। তাই এখানে ‘ল’-টির উচ্চারণ ও-
কারযোগে ‘লো’-এর মতো হবে। সুতরাং এর উচ্চারণ হবে ‘লোক্ খো’ (‘লক্ খো’ নয়)।

আরও উদাহরণ:
অক্ষর (ওক্ খোর্), সত্য (শোত্ তো), পক্ষ (পোক্ খো), কক্ষ (কোক্ খো), জন্য (জোন্
নো), সদ্য (শোদ্ দো), যজ্ঞ (জোগ্ গোঁ), যক্ষ (জোক্ খো), দক্ষ (দোক্ খো), বক্ষ (বোক্
খো)।

Spread the love