নামের বানানে ভুল নেই?

খুব প্রচলিত একটি কথা আছে- ‘নামের বানানে ভুল নেই।’এটি কি আসলেই ঠিক?


না, ‘নামের বানানে ভুল নেই’ কথাটি পুরোপুরি ঠিক নয়। উদাহরণ দিয়ে বোঝা যাক বিষয়টা।আমার নাম সবুজ। এটি বাংলা ভাষায় ব্যবহৃত একটি ফারসি শব্দ। এ শব্দটিকে বাংলা ভাষায় ‘সবুজ’ বানানে লেখা হয়। বাংলায় লিখতে গেলে এটাই এর সঠিক বানান।

এখানে আমি কোনোভাবেই ‘ষবুজ’ বা ‘সবূজ’ বা ‘সবুয’ ইত্যাদি লিখতে পারবো না। লিখলে সেটা নিশ্চিতভাবেই ভুল হবে। এখন এই শব্দটিকেই যদি আমি ইংরেজি বর্ণ দিয়ে বানান করে লিখি, সে-ক্ষেত্রে আমি ‘Sabuj’ বা ‘Sobuj’ বা ‘Shobuz’ বা ‘Sabuz’ ইত্যাদি যে-কোনো বানানে লিখতে পারি। এ-ক্ষেত্রে কোনো ভুল হবে না।

এখন মনে করুন, আমার নাম Green। এটি একটি ইংরেজি শব্দ। সুতরাং ইংরেজিতে লিখলে এটাকে এই বানানেই লিখতে হবে; কোনোভাবেই ‘Grin’ বা ‘Grean’ বা ‘Greene’ ইত্যাদি লেখা যাবে না। লিখলে সেটা নিশ্চয় ভুল হবে। এই শব্দটিকেই যদি এখন আমরা বাংলায় লিখি, তাহলে কি আমরা ইচ্ছেমতো যে-কোনো বানানে লিখতে পারবো? না, পারবো না। কেননা, বাংলায় বিদেশি শব্দের বানান লেখার সুনির্দিষ্ট নিয়ম আছে; এ-ক্ষেত্রে সেই নিয়ম মেনে লিখতে হবে। অর্থাৎ আমরা চাইলেই ‘গ্রিণ’ বা ‘গ্রীণ’ বা ‘গ্রীন’ লিখতে পারবো না। কেননা, বাংলা বানান লেখার নিয়মে বলা হয়েছে- বিদেশি শব্দের বানানে ণ ও ঈ-কার ব্যবহৃত হতে পারবে না। সুতরাং এ শব্দটিকে বাংলায় লিখতে গেলে অবশ্যই ‘গ্রিন’ লিখতে হবে।

তাহলে, সব মিলিয়ে কী দাঁড়ালো? দাঁড়ালো এই যে, যে ভাষার শব্দ বা যে বর্ণমালার বর্ণ দিয়ে নাম, সেই ভাষায় বা সেই বর্ণমালায় লেখার সময় প্রচলিত ‘সঠিক’ বানানেই লিখতে হবে। যদি সেটা অন্য ভাষার বর্ণ দিয়ে লিখি, সে-ক্ষেত্রে সেই ‘অন্য ভাষা’টির বানানের নিয়ম মেনে লিখতে হবে।সুতরাং, নামের বানান লেখার সময় স্বেচ্ছাচারী হওয়ার সুযোগ নেই।

আরেকটি কথা বলে রাখা প্রয়োজন। অনেক সময়ই দেখা যায়, বিখ্যাত ব্যক্তিবর্গ বা কালজয়ী মনীষীদের অনেকের নামের বানানই বর্তমান নিয়ম বিবেচনায় সঠিক হয় না। এসব ক্ষেত্রে তাঁদের নাম তাঁরা নিজেরা যে বানানে লিখেছেন, সেটাই অপরিবর্তিতভাবে ব্যবহার করা হয়। এটি দূষণীয় নয়। কেবল এই একটি ক্ষেত্রেই আপনি বলতে পারেন- ‘নামের বানানে ভুল নেই’।

Spread the love